ন্যাজাটে পড়ুয়াদের গল্প লেখার ওয়ার্কশপ রীতিমতো উৎসবে পরিনত হল

   

নিউজ ডেস্ক: সম্প্রতি বসিরহাট মহাকুমার ন্যাজাটে স্কুল পড়ুয়াদের নিয়ে অভিনব উদ্যোগ নিয়েছিল পালক পাবলিশার্স। স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে গল্প লেখার ওয়ার্কশপ এই অঞ্চলে এই প্রথমবার। দক্ষিণ আখড়াতলা কমিউনিটি হলে এদিন গল্প লেখার ওয়ার্কশপ করালেন সাহিত্যিক রতনতনু ঘাটী। পালক পাবলিশার্সের উদ্যোগে, ন্যাজাট সৃজন ও নবাঙ্কুর পত্রিকার আয়োজনে এই গল্প লেখার ওয়ার্কশপে অংশ নিয়েছিল ১১৭ জন স্কুলপড়ুয়া। ছাত্রছাত্রীদের উৎসাহ দিতে অনেক শিক্ষক ও অভিবাবকরাও উপস্থিত ছিলেন এই অনুষ্ঠানে।

প্রদীপ প্রজ্জ্বলন করে অনুষ্ঠানের সূচনা করছেন সাহিত্যিক রতনতনু ঘাটী।

ওয়ার্কশপে গল্প লেখার সময় কোন কোন বিষয়গুলোকে মাথায় রাখা উচিত অর্থাৎ গল্পের কলাকৌশল নিয়ে ছোটদের সঙ্গে কথা বলে রতনতনু ঘাটী। এছাড়াও গল্প লেখা, তাৎক্ষণিক গল্প বলা ও গল্প শুনে ছবি আঁকার প্রতিযোগিতা এই অনুষ্ঠানে অন্য মাত্রা এনেছে। এই তিনটি প্রতিযোগিতা নিয়ে ছেলেমেয়েদের মধ্যে উৎসাহ ছিল চোখে পড়ার মতো।

উদ্যোক্তাদের পক্ষে আবৃত্তিশিল্পী সৌমিক ব্যানার্জী বলেন, “গল্প লেখা কাউকে শেখানো যায় কিনা তা বিতর্কের বিষয়। তবে যদি এই শতাধিক বাচ্চার মধ্যে কুড়িটা বাচ্চারও যদি গল্পের প্রতি আকর্ষণ জন্মায়, বাচ্চারা বই ভালোবাসতে শুরু করে তবেই আমাদের এই প্রচেষ্টা সার্থক।” অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিরা এই ব্যতিক্রমী উদ্যোগের প্রশংসা করেন।    

Facebook Comments