সৌম্যদীপ দেব-এর কবিতা

আস্তিক নহে নাস্তিক

আস্তিক বলে আমি আছি
তুমিতো নাই।
নাস্তিক বলে না না তুমি কোথা
কেবল আমি সবর্দাই।
আস্তিক কহে দেখো আমি
মন্দির-মসজিদে,
আস্ত জগৎ দেখ আমি
ভূমিবক্ষ তলে।
দেখ আমি-
সূদ্র-ইতর-চন্ডাল-পাগলেতে।
নাস্তিক বলে অজ্ঞ তুই
দেখ আমি দন্ডায়ন,
ছাত্র যখন বদান্যতায়
রোগী যখন মুমূর্ষু
টাকা যখন ডানা গজায়
কেবা তোর নাম লয়?
আমার নামে উঠে ধ্বনি
কল-কল রবে।

আস্তিক বলে আমি সত্য,
আমিই তো সনাতন।
নাস্তিক কহে ওরে মুড়
বৃথা সন্তপর্ণ।
বনের পথে চলতে চলতে
যখন তুই একা
আমিই তোর সঙ্গে থাকি
বুঝিস না সে কথা।
না-বলি এতোই যদি মাখামাখি
দিসনা কেনো দেখা।

আস্তিক বলে আমি তোর অন্তরে
হৃদয় ফুঁড়ে দেখ;
নাস্তিক বলে কোথা তুই
শুধু লাল বন্যা চেয়ে দেখ।
এবার আর কি বলিব তোরে
নিজের চক্ষু পরের ঘরে
কাহার অন্তর চিরে;
মরমী বেদনায় যে জ্বলিছে
না আসিল প্রভাত
না আসিল কেউ
আমি এসেছি দেখ।
না ছড়াবি অবিশ্বাস
অন্তরে রাখ আস,
পাবি তুই আমার দেখা
যদি তুই রাখিস বিশ্বাস।

গাছালি বনমালী

সাল গাঁওয়ের ধনা সাঁওতালের বিটি টুসু
বহুত সক মু সহর দিকবো বাপু ,
এগারো বছরের বিটিকে ধনা সহর পানে লইয়াটো যায়।
সে তার কত পস্ন
ওই পানে ওটা কি বটে?
উহা গাছ বটে টুসু,
বাপু উহারা এমনতর কেনে?
বাপু- আরে মোর কলিজাটো
উহারা তো মানুস লয়, গাছরে বিটিয়া।
ও ; তা বাপু উহারা কি খায়?
কোন পানে থাইকে?
হা মোর বনমালী –
উহারা আকাস ঘরের তলেটো থাইকে,
আর প্রকৃতিটো থেকে খায় লো।
ইস, কি কষ্ট বাপু ইহাদের
বাপের চোখ দুটি ছল- ছল করি উঠলেক
বাপু বোইল্লেক চল বিটি
দিরি হই গেলা।
টুসু বোইলে বাপু একদিন মো ইগাছ গুলার বেদন ঘুচাইনবো
সহরে যাইনবার পর টুসুর মনটো দুঃখ হইল
সহরে একবারেইন গাছটো কম বটে,
দুইদিন বাদে সহরে টুসুর বেমো ধরিলেক,
সহরের বড় ডাক্তার বোইলেক-
‘ধনা তোমার মেয়ের বাঁচার আশা কম।’
গেরামে ফিরিয়া টুসুর বাক রোধ হইগেলা,
সে আর কিছুটি দাঁতেটো কাটিল না।
টুসুর মাটো কাইদতে কাইদতে বেহুস হই গেলা
পাড়া গাঁয়ের সকলে বোইলেক টুসুর মা সান্ত হ,
তুহার টুসু বিদায় লইবেক
টুসু বাপের হাতটো দরিয়া বোইলেক
‘ বাপু মোর গাছ গুলান!’

শিক্ষার্থীর বিকাশ

সুধু বিঘে দুই ছিলো টো মোর ভুঁই
আর সবই টো গেছে ঋণে।
এই কথা টো যে বোইলে ছিলেক –
সেই মানুষ গুলার দেশে হে কি বটে!
সারাদিন শুধু বোইলছে পড়কিনে পড়কিনে।
কেমন টো পাগল পালগ লাইগছে ।
সক্কলেই দেখি বইটোতে মুখ গুইজে
কি যে করে, আমি তো কিছুই জানিলা টো।
কুথায় টো আছে খেলার মাঠ,
কুথায় টো বা রঙ্গ – তামাসা
কি কইরে যে এদের বিকাশ টো হইবেক?
এ মরি, এ মরি।
মুর মনে একটা পসন আছে মেলাদিন ধোইরে –
এতো টো যে উহারা পড়ে এদের কোনো কাম লাই বুঝি?
আমি তো কোন দিন বই টো হাতেও লই লাই,
কি যে লিখা পড়া এতে আসে
আমি ওতোসব কিছু বুঝি লাই।
এতো জানে উহারা তবুও কতো দরবার পারে।
আমার ওতো বুদ্ধি লাই
কম জেইনে আমি খারাপ টো তো লাই।

Facebook Comments