কোনও খারাপ ঘটনার পর নিজেকে সামলাতে যা করবেন…

খুন, ধর্ষণ, দুর্ঘটনা সহ নানা রকমের বীভৎস ঘটনা এখন হার হামেশাই চোখে পড়ে। তবে আমাদের সমাজে সব মানুষ মানসিকভাবে সমান দৃঢ় হন না। অনেকেই এসব ঘটনা দেখার পর মানসিকভাবে অস্থির হয়ে পড়েন এবং ধীরে ধীরে অসুস্থও হয়ে পড়েন। কেউ কেউ রাতের পর রাত ঘুমাতে পারেন না, ঘুমালেও দুঃস্বপ্ন তাড়া করে, বিষণ্ণতায় ভুগতে শুরু করেন, রক্তচাপ বেড়ে যায়।

জীবনে বীভৎস ঘটনা চোখের সামনে আসবেই। তারপর কীভাবে নিজেকে সামালাবেন, সে ব্যাপারে কিছু পরামর্শ দেওয়া হল-

  • বীভৎস কিছু দেখার পর যদি শারীরিক অসুস্থতা বোধ করেন, (যেমন- ঘাড়ে ব্যথা, বুক ধড়ফড় করা, চোখের সামনে অন্ধকার দেখা, দমবন্ধ হয়ে আসা ইত্যাদি) তাহলে অতি অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। এই লক্ষণগুলোকে অবহেলা করবেন না। কারণ এগুলো আগামীতে ভয়ঙ্কর কিছু রোগ ডেকে আনতে পারে।
  • যদি এমন কিছু দেখে ফেলেন যা আর সহ্য করতে পারছেন না, তখন বিষয়টি থেকে তৎক্ষণাৎ নিজেকে সরিয়ে নিন। একটু চেষ্টা করলেই দেখবেন বিষয়টি থেকে মনোযোগ সরে যাবে।
  • বীভৎস স্মৃতি মানুষ সহজে ভোলে না। সাময়িক ভুলে গেলেও স্মৃতিতে ফিরে ফিরে আসে বারবার। তবুও, যে বীভৎস ঘটনা আপনাকে তাড়া করে ফিরছে, সেটা ভুলে যাওয়ার চেষ্টা করাটা জরুরি। মন যখন বীভৎস কিছুর সাক্ষী হয়, তখন মনকে সুন্দর কিছুর সাক্ষীও করতে হয়। নিজের পরিবার-পরিজনদের দিকে তাকান, নিজের জীবন ও সন্তানদের দিকে তাকান, জোর করে হলেও দেখার চেষ্টা করুন যে জীবন কত সুন্দর।
  • খুব স্ট্রেস ফিল করতে থাকলে নিজের পছন্দের গান শুনুন। অবশ্যই বিষাদের বা দুঃখের কিছু শুনবেন না। পছন্দদের গান শুনতে শুনতে ঘুমিয়ে পড়ার চেষ্টা করুন। ঘুম ভাঙার পর দেখবেন মন কিছুটা হলেও হালকা লাগবে।
  • সম্ভব হলে শিশুদের সাথে সময় কাটান। শিশুরা যে কোনও দুঃখ-কষ্ট ভুলিয়ে দিতে পারে।
  • সম্ভব হলে ব্যায়াম করুন। শারীরিক পরিশ্রম মানসিক কষ্ট ভুলিয়ে দেয় একথা বিজ্ঞানসন্মতভাবে প্রমানিত।
  • নিজের প্রিয় মানুষের সঙ্গে কথা বলু্‌ন, তাঁর সঙ্গে সময় কাটান। একটু মন খুলে কথা বললে মনের কষ্ট ও স্ট্রেস কমবে।
  • সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে বীভৎস বা দুঃখজনক বিষয়টির প্রতিকারের জন্য কিছু করা। আপনি কিছু কিছুই না করে অক্ষম হয়ে বসে থাকেন, সেটা আপনার মানসিক যন্ত্রনা বাড়াবে।

সবশেষে একটা কথা বলার নিজেকে বোঝান পৃথিবী অনেক সুন্দর। আর খারাপ ভালো নিয়েই তো জীবন। এখানে ভেঙে পড়া বা থমকে যাওয়ার কোনও জায়গা নেই। সুন্দর স্মৃতিরোমন্থনই পারে বিষাদ থেকে দূরে রাখতে।

Facebook Comments