শীতকালে মুখের দাগ সারিয়ে তুলুন দারুচিনি দিয়ে

মুখের ত্বকে দাগ বা কালচে ভাব শুধু যে আমাদের ব্যক্তিত্বকে ফ্যাকাশে করে তোলে তা নয়।
মনস্তাত্বিকেরা বলেন, ত্বকের সমস্যা নাকি ডিপ্রেশনেরও কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। মূলত ব্রন
এর দাগ বা অন্যান্য ফুসকুরি জাতীয় সমস্যার কারণে অনেক সময় কিছু কিছু দাগ দীর্ঘস্থায়ী হয়ে
যায়। অনেক দামি মেডিসিন বা অন্যান্য পথ্য ব্যবহার করেও কোনো লাভ পাওয়া যায় না। যদি
এরকম কোনো সমস্যায় আপনি ভুগে থাকেন তাহলে একবার নীচের দেওয়া পদ্ধতি অবলম্বন করে
দেখতেই পারেন।
দারুচিনি আমরা প্রত্যেকেই ব্যবহার করে থাকি কমবেশি। কিন্তু আপনি কি জানেন, দারুচিনির
মধ্যে আছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ব্রণকে শুষ্ক করে, ত্বকের রক্ত চলাচল বাড়ায়, ত্বকের বাইরের অংশকে অক্সিজেন প্রদান করে, পোর মিনিমাইস করে, অতিরিক্ত অয়েল রিমুভ করতে সাহায্য করে। ব্রণের জন্য এখন অতিরিক্ত খরচ না করে ঘরে বসেই তার ট্রিটমেন্ট সম্ভব। কীভাবে ট্রিটমেন্ট করবেন দারুচিনি ব্যবহার করে ? চলুন বিষয়টি জেনে নেওয়া যাক।
প্রথমে ত্বক বেশ ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিন। ফেসওয়াশ ব্যবহার করতে পারেন। ত্বক পরিষ্কার থাকতে হবে। তবে ত্বকে কোনো স্ক্রাব ব্যবহার করবেন না, কেননা স্ক্রাব আমাদের ত্বকের পোরগুলো খুলে দেয় যার জন্য এই প্যাকটি পুরোপুরি কাজ করবে না। এই প্যাকটির জন্য একটি ডিম লাগবে। এরপর ২ টেবিল চামচ দারুচিনি মিক্স করতে হবে। ভালো করে মিশিয়ে নিয়ে আধাঘণ্টার জন্য ফ্রিজে রেখে দিন। তারপর পুরো মুখে লাগিয়ে শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করতে করুন। এবার উষ্ণ গরম জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই প্যাকটি ফ্রিজে রেখে ৩ দিন ব্যবহার করা যেতে পারে। কিন্তু তার বেশি ব্যবহার না করাই উচিৎ। এছাড়াও প্যাকটি ব্যবহার করার আরো একটি উপায় রয়েছে। এই প্যাকটির জন্য প্রথমে একটি বাটিতে ৩ টেবিল চামচ মধু এবং ১ টেবিল চামচ দারুচিনি নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। তারপর ত্বকে লাগিয়ে আধা ঘণ্টার মতো রেখে দিতে হবে। এরপর ধীরে ধীরে ম্যাসাজ করতে থাকুন। প্রায় ১০ মিনিট ম্যাসাজের পর হালকা গরম জল দিয়ে ত্বক ভালো করে ধুয়ে ফেলুন। ত্বক ভালো করে ধোয়ার পর পরিষ্কার তোয়ালে দিয়ে মুখ শুকিয়ে নিন। এই প্যাকটি সপ্তাহে ২ দিন ব্যবহারই যথেষ্ট। এভাবে ত্বকের সমস্যাকে ধীরে ধীরে আপনি দূর করতে পারেন অতি সহজেই।

Facebook Comments