জেনে রাখুন কেন হস্তমৈথুনের কথা মাথায় আনবেন না আপনি…

কমপক্ষে ৯০ শতাংশ মানুষই হস্তমৈথুনে আসক্ত। এর ফলে নানা জটিল রোগের স্বীকার হয়ে পড়েন ঐ ব্যক্তি। যদিও আধুনিক চিকিৎসাবিদ্যা অনুযায়ী মাসে দুবার হস্তমৈথুন স্বাস্থ্যের পক্ষে খুব একটা ক্ষতিকর নয়। কিন্তু আপনি কি জানেন, আপনার একফোঁটা বীর্য ৮০ ফোঁটা রক্তের সমান। আর তাছাড়া কীভাবে আসক্তি চলে আসছে হস্তমৈথুনে যা আপনার জীবনকে ধ্বংসের পথে নিয়ে যাচ্ছে ? আসুন জেনে নিই, কেন আপনি হস্তমৈথুনের কথা মাথাতে ভুলেও আনবেন না।

সাধারণত হস্তমৈথুনে অভ্যস্ত হয়ে পড়লে একজন সিডেলিক ড্রাগ গ্রহণকারী ও হস্তমৈথুনকারীর মধ্যে কোনো পার্থক্য থাকে না। কারণ, অভ্যেসে দাঁড়িয়ে গেলে আমাদের মস্তিষ্কের স্নায়ু ঠিক ওই সময়েই আপনাকে উত্তেজিত করে তুলবে, যে মুহূর্তে আপনি হস্তমৈথুন করতে পছন্দ করেন। ফলে কোনোরকম ভাবেই আপনি আপনার হস্তমৈথুন বন্ধ করতে পারবেন না। আর তাছাড়া মাথার নার্ভ শুকিয়ে ফেলাতেও হস্তমৈথুন সাহায্য করে। 

Follow us on :


গবেষকরা বলছেন, সুষুম্নাকাণ্ডের নমনীয়তা নষ্ট করে ফেলে অতিরিক্ত হস্তমৈথুন। তাই চেষ্টা করুন হস্তমৈথুন এড়িয়ে চলতে। যদি আপনি এটিতে আসক্ত হন তাহলে এখনই ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ করুন। অথবা, নিজের অভ্যেস পালটে ফেলার চেষ্টা করুন দ্রুত।

হস্তমৈথুন ত্যাগ করার সবচেয়ে ভালো উপায় হলো, নিজের স্নায়ুকে শীতল রাখার চেষ্টা করুন। গরমকালে সারাদিনে অন্তত তিনবার স্নান করার চেষ্টা করুন। রাত্রে বিছানা নেওয়ার আগে ও ভোরে ঘুম থেকে উঠে গোমুখাসন অভ্যেস করুন নিয়ম করে। এছাড়া রাত্রে শোবার সময় গরম দুধের মধ্যে অশ্বগন্ধা চূর্ণ মিশিয়ে খেতে পারেন। তবে ভুলেও কোনো মেডিসিন ব্যবহার করবেন না।
 

মনে রাখবেন আপনি আপনার দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করতে সক্ষম হলে তবেই আপনি সফল হবেন। কারণ, আপনার চোখই হল আপনার দেহের প্রদীপ। অতএব, নিজেকে যতটা সম্ভব এই খারাপ অভ্যেস থেকে দূরে রাখুন।


Facebook Comments