দুশ্চিন্তার কারণে রাতে ঘুমে ব্যাঘাত! জেনে নিন প্রতিকারের উপায়

ঘুম একটা শারীরিক স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। তবে ঘুমে ব্যাঘাত ঘটলে সারাদিন তো খারাপ যাবেই। আর যদি তা দীর্ঘদিন ধরে হয় তাহলে ঐ ব্যক্তি অসুস্থ হয়ে পড়বেন। কোনও কিছু নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকলে ঘুমে ব্যাঘাত ঘটবে এটাই স্বাভাবিক। তবে এই উদ্বিগ্নতা কমানো সম্ভব। মনকে নিয়ন্ত্রন করে দুশ্চিন্তা থেকে বেরোনো সম্ভব।

জেনে নেওয়া যাক কীভাবে উদ্বিগ্নতা কম করে চোখে ঘুম আনা যায়-

  • একদম প্রথমে ভেবে দেখুন কোন বিষয় নিয়ে আপনি দুশ্চিন্তা করছেন! সেটা কি একটিই বিষয় নাকি অনেকগুলো বিষয়? আপনার দুশ্চিন্তা করায় পরিস্থিতির কি কোনও পরিবর্তন হবে? তবে অবশ্যই চোখ বন্ধ করে ভাবুন। কিছুক্ষণের মধ্যে মস্তিষ্ক ক্লান্ত হয়ে ঘুম নেমে আসবে চোখে।
  • যদি এতে কাজ না হয়, তবে জোর করে বিছানায় শুয়ে থেকে লাভ নেই। বিছানায় শুয়ে শুয়ে মোবাইলে স্ক্রল করে লাভ কিছু হবে না, এতে আরও উদ্বিগ্নতা বাড়বে। তাই এসব বাদ দিয়ে উঠে পড়ুন। লাইট জ্বালিয়ে বসুন। কিছুক্ষণ পর আবারো ঘুমাবার চেষ্টা করুন।
  • উঠেই যখন পড়েছেন তখন হালকা কিছু খেতে পারেন। এক গ্লাস উষ্ণ দুধ পান করতে পারেন বা একটি কলা খেতে পারেন। ভুলেও চা-কফি পান করবেন না বা মশলাদার কিছু খাবেন না। আর ভুল করেও সিগারেট ধরাবেন না।
  • দুধ কিংবা কলা নিয়ে যখন বসেইছেন তখন একটি কাগজ-কলম টেনে নিন। আপনার দুশ্চিন্তার কারণগুলো লিখে ফেলুন। সেই সঙ্গে সম্ভাব্য সমাধান, আপনার করণীয় কী আছে ইত্যাদির একটা লম্বা লিস্ট বানিয়ে ফেলুন। সমস্যা সমাধানের একটু আভাস দেখতে পেলে আপনার মন একটু স্বস্তি পাবে। ফলে চিন্তা কমবে আর ঘুম আসবে চোখে।
  • তাতেও না হলে একটু পড়াশোনা করুন। এর মানে মোবাইলে বা কম্পিউটারে বসে কিছু পড়া নয়। ছাপার অক্ষরের কিছু পড়ার চেষ্টা করুন। অফিসের কাজ বা লেখাপড়া থাকলে সেটা নিয়েও বসতে পারেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই ঘুম পেতে শুরু করবে।
  • এইসবের কিছুতেই কাজ কাজ না হলে মেডিটেশন বা ধ্যান করুন। ধ্যান আপনার মনকে শান্ত করতে সাহায্য করবে। মন শান্ত হয়ে গেলে ঘুম আসবে সহজেই।
  • এছাড়াও আরও কিছু ব্যাপারে লক্ষ্য রাখা জরুরী। খেয়াল রাখুন যেন ফোনের নোটিফিকেশন সাউন্ড বন্ধ থাকে। রাত জেগে টিভি দেখার অভ্যাস থাকলে তা বাদ দিন।
Facebook Comments